page contents
Cool Neon Green Outer Glow Pointer
কোরআন হাদিস লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
কোরআন হাদিস লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান

মাযহাব নিয়ে যত কথা ও তার সকল সমাধান! মাযহাব কি এবং কেন ? মাযহাব মানা কি জরুরী ?



মাযহাব কি এটা জানার আগে প্রথমে জানতে হবে মুজতাহিদ কাকে বলে ?

ইজতিহাদের শাব্দিক অর্থ ==, উদ্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জনের জন্য যথাসাধ্য পরিশ্রম করা। ইসলামী ফেকাহ শাস্ত্রের পরিভাষায় ইজতিহাদ অর্থ, === কোরআন ও সুন্নায় যে সকল আহকাম ও বিধান প্রচ্ছন্ন রয়েছে সেগুলো চিন্তা-গবেষণার মাধ্যেমে আহরণ করা।

মুজতাহিদ= হলেন যারা কুরআন সুন্নাহ, সাহাবাদের ফাতওয়া, কুরআন সুন্নাহ সম্পর্কে বিজ্ঞ ব্যক্তিদের ঐক্যমত্বে এবং যুক্তির নিরিখে কুরআন সুন্নাহ থেকে মাসআলা বেরকারী গবেষক দলের নাম।তাছডা মুজতাহিদ গন বিভিন্ন গুনে গুনান্নীত হতে হয় নিন্মে তার কিছু সংক্ষিপ্ত ধারনা পেশ করা হয়েছে ৷
[ 1] যারা নিষ্ঠার সাথে বিভিন্ন মূলনীতি নির্ধারণ করে কুরআন সুন্নাহর বাহ্যিক বিপরীতমুখী মাসআলার মাঝে সামাঞ্জস্যতা এনেছেন।

Must See this post কি ভাবে সঠিক নিয়মে নামায আদায় করবেন Must See this pos

http://www.moviezone247.ml/search?updated-max=2016-07-07T11:40:00-07:00&max-results=10
নামাজ আদায় করার নিয়ম।

১.জানামজের দোয়াঃ
অযু পরে জায়নামাজে দাড়ালে জানামজের দোয়া পরতে হবে।

ِنِّىْ وَجَّهْتُ وَجْهِىَ لِلَّذِىْ فَطَرَالسَّمَوَتِ وَاْلاَرْضَ حَنِيْفَاوَّمَااَنَا مِنَ الْمُشْرِكِيْنَ

যুগে যুগে মানুষ যখন অমরত্বের সন্ধানে/When people are forever in search of immortality

অমরত্ব লাভের নেশায় মানুষ সেই আদিম কাল থেকেই বিভোর রয়েছে আজও পর্যন্ত। কারও কাছে অনন্ত কালের জন্য জীবন প্রত্যাশাই হলো অমরত্ব, কারও কাছে মৃত্যুর পর তাঁর কীর্তি দিয়ে মানুষের মাঝে বেঁচে থাকার নামই হলো অমরত্ব আর কারও কাছে তার বয়স ধরে রাখার মাঝেই অমরত্বের স্বাদ কিংবা মৃত্যুর পর পুনর্জন্ম লাভের প্রত্যাশাই হয়তবা কারও কাছে অমরত্ব। মানুষের মরদেহকে মমি করে রাখার সময়কাল থেকে শুরু করে আধুনিক যুগের ক্রিওনিক্স পদ্ধতি স

কখনো কি আপনার মনে প্রশ্ন যেগেছে যে পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘূরে না কি সূর্য পৃথিবীর চারিদিকে ঘূরে!!

প্রশ্নঃ-(ক)সূর্য কি পৃথিবীর চার দিকে ঘুরে ?

জবাবঃ-(১)ইসলামি শরিয়তের প্রকাশ্য দলিলগুলো অকাট্যভাবে প্রমাণ করে যে- পৃথিবী নয়, সূর্যই আসলে পৃথিবীর চতুর্দিকে ঘূরে । এই ঘূরার কারনেই পৃথিবীতে দিবা-রাত্রির আগমন ঘটে। আমাদের হাতে নিম্নোক্ত

ইসলাম ধর্মে শুকরের মাংস খাওয়া নিষিদ্ধ কেন?

ডাঃ জাকির নায়েক
এটা সর্বজন বিদিত যে, শুকুরের মাংস ভক্ষণ ইসলামে নিষিদ্ধ। নিম্নে বর্ণিত বিষয়গুলো এই নিষিদ্ধতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরবে।

ক. কুরআনে শুকুরের মাংস নিষিদ্ধতা

শুকুরের মাংস খাওয়া নিষেধঅন্তত চারটি স্থানে উল্লেখ করা হয়েছে ২:১৭৩, ৫:৩, ৬:১৪৫, এবং ১৬:১১৫।

হযরত ইমাম আবু হানিফা (রহ.) কে যেভাবে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিলো

ইমাম আবু হনিফা (রহ) মাজার

যুগে যুগে বহু ক্ষণজন্মা ব্যক্তিত্ব ইসলামের সেবা করে অমর হয়ে আছেন। ইমামে আজম হজরত আবু

বিশ্বনবী হুজুর (সাঃ) এর রওজা থেকে তাঁর দেহ মোবারক চুরির চেষ্টার ভয়ংকর ঘটনা জানুন!


হিজরী ৫৫৭ সালের একরাতের ঘটনা। সুলতান নূরুদ্দীন জাঙ্কি (র:) তাহাজ্জুদ ও দীর্ঘ মুনাজাতের পর ঘুমিয়ে

গল্প নয় সত্যিঃ শাদ্দাদের বেহেশতের কাহিনী-

হযরত হুদ (আঃ) এর আমলে শাদ্দাদ নামে
একজন অতীব পরাক্রমশালী ঐশ্বর্যশালী
মহারাজা ছিল। আল্লাহর হুকুমে হযরত হুদ
(আঃ) তার কাছে ইসলামের দাওয়াত পেশ
করেন এবং দাওয়াত গ্রহণ করলে আখেরাতে
বেহেশত লাভ অন্যথায় দোযখে যাওয়া
অবধারিত বলে জানান। শাদ্দাদ হযরত হুদ
(আঃ) এর কাছে বেহেশত ও দোযখের

কোন কোন পাপকর্মের সাজা দুনিয়াতেই পেয়ে যাবেন


১৫২. যারা গো-বৎসকে উপাস্যরূপে গ্রহণ করেছে, তাদের ওপর পার্থিব জীবনেই তাদের প্রতিপালকের পক্ষ থেকে গজব ও লাঞ্ছনা এসে পড়বে। আর আল্লাহর নামে মিথ্যা কথা রটনাকারীদের আমি এভাবেই প্রতিফল দিয়ে থাকি।

সে সঠিক পথ থেকে একেবারেই হারিয়ে গেছে — আল-বাক্বারাহ ১০৮

হাজার বছর আগে মুসা ﷺ নবীকে বনি ইসরাইলিরা নানা ধরনের প্রশ্ন করত: “আল্লাহ ﷻ কোথায়? দেখাও আমাদেরকে। আল্লাহকে ﷻ নিজের চোখে না দেখলে, নিজের কানে তাঁর আদেশ না শুনলে বিশ্বাস করব না।” হাজার বছর পরে আজ একবিংশ শতাব্দীতে এসে এখনও আল্লাহর ﷻ সম্পর্কে সেই একই ধরনের প্রশ্ন করতে দেখা যায়। শুধু প্রশ্নগুলো আগের থেকে আরও ‘আধুনিক’ এবং ‘বৈজ্ঞানিক’ হয়েছে, এবং কথা ও যুক্তির মারপ্যাঁচে একটু বেশি গম্ভীর শোনায় —এই যা।

অনেকের মনে প্রশ্ন থাকে আল্লাহকে কে সৃষ্টি করেছেন?

পিসটিভির প্রশ্নোত্তর পর্বে ড. জাকির নায়েককে জিজ্ঞাসা করা হয়, আল্লাহকে কে সৃষ্টি করেছেন, যার কোনো শেষ নেই শুরুও নেই। উত্তরে ড. জাকির নায়েক বলেন, সাধারণত এ প্রশ্নের উত্তরটি আমি আরেকটি প্রশ্নের মাধ্যমে দিই। এভাবে যে, আমি বললাম, আমার বন্ধু জন সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য হসপিটালে ভর্তি হয়েছেন। সে হাসপাতালে একটি সন্তান জন্ম দিয়েছে। আপনি বলতে পারবেন সন্তানটি ছেলে না

মানব জাতির জন্যে দাজ্জালের চেয়ে অধিক বড় বিপদ আর নেই।

11430261_1142174579129872_515759975_nআখেরী যামানায় কিয়ামতের নিকটবর্তী সময়ে মিথ্যুক দাজ্জালের আবির্ভাব ঘটবে। দাজ্জালের আগমণ কিয়ামত নিকটবর্তী হওয়ার সবচেয়ে বড় আলামত। মানব জাতির জন্যে দাজ্জালের চেয়ে অধিক বড় বিপদ আর নেই। বিশেষ করে সে সময় যে সমস্ত মুমিন জীবিত থাকবে তাদের জন্য ঈমান নিয়ে টিকে থাকা অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়বে। সমস্ত নবীই আপন উম্মাতকে দাজ্জালের ভয় দেখিয়েছেন। আমাদের নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)ও দাজ্জালের ফিতনা থেকে সতর্ক করেছেন এবং তার অনিষ্ট থেকে বাঁচার উপায়ও বলে দিয়েছেন। ইবনে উমার (রাঃ) নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) হতে বর্ণনা করেনঃ

তাহাজ্জুদের নামাজ এবং ফজিলত ও রমযানে এর গুরুত্ব!!

সিয়াম সাধনার মাসসিয়াম সাধনার মাসমাহে রমজানের নফল ইবাদতের মধ্যে ইতিকাফের সময় তাহাজ্জুদ নামাজ আদায়ের গুরুত্ব অপরিসীম। আরবি ‘তাহাজ্জুদ’ শব্দের আভিধানিক অর্থ রাত জাগরণ বা নিদ্রা ত্যাগ করে রাতে নামাজ পড়া। শরিয়তের পরিভাষায় রাত দ্বিপ্রহরের পর ঘুম থেকে জেগে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য যে নামাজ আদায় করা হয় তা-ই ‘সালাতুত তাহাজ্জুদ’ বা তাহাজ্জুদ নামাজ। বছরের অন্যান্য সময়ের মতো রমজান মাসে তাহাজ্জুদ নামাজের ব্যাপারে বিশেষভাবে উৎসাহিত করা হয়েছে। তাহাজ্জুদ নামাজ যেকোনো সময়ই অত্যধিক ফজিলতের কারণ।

কিয়ামতের আগে কোন কোন অপকর্ম উম্মাতে মুহাম্মাদীর মধ্যে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পরবে?

120আল্লাহ তাআলা এবং তদীয় রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ব্যভিচার হারাম করেছেন। ইহা হারাম হওয়া অতি সুস্পষ্ট বিষয়। এমন কোন মুসলিম নারী-পুরুষ পাওয়া যাবেনা যে এর হারাম হওয়া সম্পর্কে অবগত নয়।
আল্লাহ তাআলা বলেন,
وَلَا تَقْرَبُوا الزِّنَى إِنَّهُ كَانَ فَاحِشَةً وَسَاءَ سَبِيلًا
আর তোমরা ব্যভিচারের কাছেও যেয়োনা। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং খুবই মন্দ পথমুমিন। (সূরা বানী ইসরাঈল : ৩২)
ব্যভিচারের ইহকালীন শাস্তি হলো বিবাহিত হলে রজম করা তথা পাথর মেরে হত্যা করা। আর অবিবাহিত হলে একশত বেত্রাঘাত করা

নুহ নবীর কিস্তির খোজে

প্রত্নতত্ত্ববিদরা বিভিন্ন ধর্ম গ্রন্থে ও পৌরানিক কাহিনীতে বিভিন্ন স্থানগুলোকে খুজে বের করার প্রয়াস নিয়ে থাকেন। গ্রিক মহাকবি হোমারের ওডিসিতে এভাবে বর্নিত ট্রয় নগরী পূরাকীর্তি অভিযানের মাধ্যমে খুজে বের করা হয়েছে। পবিত্র কোরানে উল্লেখিত শেবার রানী বিলকিসের প্রসাদ কে এভাবে এক প্রত্নতাত্ত্বিক অভিযানে ইথিওপিয়ার আকসুম নগরীতে খুজে পাওয়া গেছে। দাম্ভিক রাজা সাদ্দামের বেহেশত বলে কথিত ইরম নগরীর

কবে কোথায় কিভাবে কিয়ামত সংঘঠিত হবে? সকল প্রশ্নের জবাব একসাথে দেখুন

কিয়ামত হযরত ইসরাফীল আ. এর সিঙ্গার সেই ভয়ংকর
ফুৎকারের নাম যার ফলে পুরো পৃথিবী প্রকম্পিত হবে।
কম্পনের মাত্রা ও ফুৎকারের আওয়াজ উত্তরোউত্তর
বাড়তেই থাকবে এত বিকট হবে যে, যার ফলে সমস্ত
প্রানী প্রাণ হারাবে। যমীন ফেটে যাবে। পাহাড়-
পর্বত উড়তে থাকবে ধূনিত তুলার মত। গ্রহ নক্ষত্র
পড়ে যাবে টুকরো টুকরো হয়ে। সৃর্য আলোহীন

সমকামিতার উদ্ভাবক ও তার করুণ পরিণতি


হযরত লূত (আ:) এর পরিচয় :
লূত শব্দটির উদ্ভব লাতা শব্দ থেকে। এর অর্থ নিজেকে স্নেহভাজন করা। হযরত ইব্রাহীম (আ:) এর হৃদয় লুত (আ:) এর প্রতি অতিশয় স্নেহানুরক্ত ছিল বলে তার এরুপ নামকরন সার্থক হয়েছিল। আল্লাহ তার বান্দার (লুত) প্রতি বিশেষভাবে সন্তুষ্ট হয়ে তাকে আপন বন্ধু গ্রহণ করে নবুওয়্যাত দান করেছিলেন। বাইবেলে এ নবীকেই লুট বলা হয়েছে।

বংশ পরিচয় :
লুত (আ:) ছিলেন ইব্রাহীম (আ:)

মানব সৃষ্টির ইতিহাসে আমাদের আদি পিতা হযরত আদম (আলাইহিস সালাম) এর জ্বিবণী

১. হযরত আদম (আলাইহিস সালাম)

বিশ্ব ইতিহাসে প্রথম মানুষ ও প্রথম নবী হিসাবে আল্লাহ পাক আদম (আলাইহিস সালাম)-কে নিজ দু’হাত দ্বারা সরাসরি সৃষ্টি করেন (ছোয়াদ ৩৮/৭৫)। মাটির সকল উপাদানের সার-নির্যাস একত্রিত করে আঠালো ও পোড়ামাটির ন্যায় শুষ্ক মাটির তৈরী সুন্দরতম অবয়বে রূহ ফুঁকে দিয়ে আল্লাহ আদমকে সৃষ্টি করেছেন।[1]
অতঃপর আদমের পাঁজর থেকে তাঁর স্ত্রী হাওয়াকে সৃষ্টি করেন।[2] আর এ কারণেই স্ত্রী জাতি স্বভাবগত ভাবেই পুরুষ

কুরআনে বর্ণিত আসহাবে কাহাফ বা গুহাবাসীর ঘটনা ও তার শিক্ষা



http://amderblogger.blogspot.comপবিত্র কুরআনে আল্লাহ্ তাআলা যে সমস্ত ঘটনা উল্লেখ করেছেন, তার প্রত্যেকটি ঘটনাতেই আমাদের জন্য অনেক শিক্ষণীয় বিষয় রয়েছে। কিন্তু আমাদের অনেকেই সেই ঘটনাগুলো এমনভাবে উপস্থাপন করেন, যাতে শিক্ষণীয় বস্তুগুলো সুস্পষ্ট হয়ে উঠে না। বক্তাগণ এ সমস্ত

Blogger Widgets

Follow by Email