page contents
Cool Neon Green Outer Glow Pointer

পৃথিবিতে কিছু মানবের অস্বাভাবিক মৃত্যু যেগুলি ই-পাতিহাসের পাখায় লিখা আছে!!



এস্কিলোঃ গ্রীক নাট্যকার
ওরাকলের করা ভবিষ্যদ্বাণীতে এস্কিলো যখন জানতে পারলেন ইমারতের নিচে চাপা পড়ে তার মৃত্যু হবে, তখন থেকেই দুর্ঘটনা এড়াতে তিনি শহরের বাহিরে বসবাস শুরু করলেন। কিন্তু বিধিবাম একদিন এক বাজপাখি শিকারকৃত একটি কচ্ছপ শুন্য থেকে ফেলে দিলে সেটি এস্কিলোর মাথার উপর পড়ে এবং সেই আঘাতেই তার জীবনাবসান ঘটে।


ফ্রেডেরিখ বারবারোসাঃ জার্মান সম্রাট( ১১২২-১১৯০)
পবিত্রভুমি জেরুজালেম জয় করার উদ্দেশ্যে সৈন্যসামান্ত নিয়ে ঘোড়ার পিঠে সওয়ার হয়ে দীর্ঘসময় মরুভূমিতে পথ চলার পর প্রচন্ড তৃষ্ণার্ত অবস্থায় এক সময় সালেফ নদীর তীরে উপস্থিত হন সম্রাট ফ্রেডেরিখ। নদীর টলমলে পানি দেখে তেষ্টা নিবারণ এবং স্নান করার জন্য ঘোড়া থেকে নেমে মহুর্ত্তে ঝাপিয়ে পড়েন স্রোতস্বীনি নদীর বুকে এবং ভুলে যান তার পরিধানের লৌহবর্মের কথা। ফলশ্রুতিতে তার সলিলসমাধির বিনিময়ে গুনতে হয় নিজের ভুলের মাশুল।


দ্বাদশ জন পোপঃ
৯৬৪ সালে পোপ দ্বাদশ জনকে এক রমনীর শয়ন কক্ষে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেলে তার রহস্যাবৃত মৃত্যুকে ঘীরে ধুম্রজ্বালের সৃষ্টি হয়। কোনো মহল সেই রমনীর স্বামীকেই পোপের ঘাতক বলে দাবি করে আবার কেউ কেউ মনে করেন রমনীর সাথে সহবাস করার সময় পোপ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান


ক্রীস্টেইন চুবুকঃ সাংবাদিক ও সংবাদপাঠিকা।
১৯৭৪ সালের ১৫ জুলাই ক্রীস্টেইন চুবুক স্থানীয় টেলিভিশনের একটি লাইভ অনুষ্ঠান পরিচালনা করার সময় আত্মহত্যা করেন। অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার ৮ মিনিট পর আচমকা একটি রিভলবার বের করে তিনি নিজের মাথায় গুলি চালান।


এ্যাটিলাঃ হান্সদের নেতা
বিয়ের বাসর রাতে অত্যাধিক মদ পান করায় তার নাক দিয়ে রক্তক্ষরণ শুরু হয় এবং অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে এক সময় তার শ্বাসনালী বন্ধ হয়ে যায় এবং পরদিন সকালে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।



জিম ফিক্সঃ লেখক
১৯৭৭ সালে তার লেখা The Complete Book of Running" বইটি সবচেয়ে বেশি কপি বিক্রি হওয়ায় সে বছরের সর্বোত্তম বিক্রেতা হিসেবে তিনি গৌরব অর্জন করেন। পরিমিত খাদ্যাভ্যাস এবং ব্যায়াম অনুশীলন মধ্যেই যে দীর্ঘজীবন লাভ যায় সেটাই তিনি তার বইতে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছেন । তিনি তার লেখায় বলতে চেয়েছেন, খাদ্যসংযম অভ্যাস করা এবং ব্যায়াম অনুশীলন দীর্ঘজীবন লাভ করার চাবিকাঠি। একদিন এই লেখক যোগিং করার সময় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঘটনাস্থলে মৃতুবরণ করেন।


গ্রীগোরী রাসপুতিনঃ রাশিয়ান সন্যাসী ।
১৯১৬ সালে রাশিয়ার এই প্রভাবশালী সন্যাসীকে বরফের নিচে পানিতে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় । যদিও পানিতে ডুবে তার মৃত্যুকে একটি নিছক দুর্ঘটনা বলে অপপ্রচার করা হয় কিন্তু তার মৃত্যু যে একটি পরিকল্পিত হত্যা সেটি পরবর্তিতে সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হয়। রাসপুতিন এর দেহ নদীতে জমাট বরফ কেটে গর্ত করে পানিতে নামানোর আগে তার শরীরে বিষ প্রয়োগ করা হয়, এরপর তাকে পুরুষত্বহীন অর্থাৎ খাসি করানো হয় । তাছাড়া তার মাথায়, ফুসফুস ও কলিজাতেও আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়।


স্যার ফ্রান্সিস ব্যাকনঃ ব্রিটিশ দার্শনিক এবং রাজনীতিবিদ ।
শীতে মৃতদেহ পচনে দেরী হয় এই সত্যটি পরীক্ষা করা জন্য একদিন প্রচন্ড তুষারপাত উপেক্ষা করে তিনি ঘরের বাহির হন এবং একটি মুরগি বধ করে সেটি মাটিতে পুতে রাখেন।এরপর তিনি ঘরে ফিরে আসেন ঠিকই কিন্তু নিজের অজান্তে শরীরে বহন করে নিয়ে আসেন মরণঘাতী রোগ নিউমেনিয়া। এর অল্প কিছুদিন পর তিনি শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করেন।



ফ্রাঁসোয়া ভাটেলঃ ফ্রান্স রাজা চতুর্দশ লুই এর বাবুর্চি ।
ঘটনাটি ঘটে ১৬৭১ সালে । যদিও প্রসিদ্ধ বাবুর্চি ফ্রাঁসোয়া ভাটেল সময়মত তার রন্ধনশালায় সামুদ্রিক মাছ সরবরাহ করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন কিন্তু সরবরাহ আসতে অনেক দেরী হওয়ায় এবং নৈশভোজ বিলম্বে হবার কথা ভেবে অভিমানে ও লজ্জ্বায় ফ্রাঁসোয়া ভাটেল আত্মহত্যা করেন।


আলান পিন্কারটনঃ যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা ও গুপ্তচর।
যুক্তরাষ্ট্রের নামকরা গোয়েন্দা আলান পিন্কারটন ফুটপাতে দিয়ে হাটার সময় পিছলে পরে গেলে তার জিভে কামড় লাগে এবং পরবর্তিতে তার জিহ্বার সেই ক্ষতস্থানে গ্যানগ্রীন হয়ে যায়। অবশেষে গ্যানগ্রীন রোগের কারণেই ১৮৮৪ সালে আলান মৃতুবরণ করেন।


জেরোমে লারভিংরোডেলঃ যুক্তরাষ্ট্রের বাস্তুসংস্থান আন্দোলনের উদ্যোগতা।
জেরোমে লারভিং রোডেল একটি সাক্ষাৎকারে ১০০ বছর বাঁচার প্রত্যয় ব্যক্ত করার কিছুদিন পরই ৭৩ বছর বয়সে মারা যান।

photo post from http://amderblogger.blogspot.com/2015/01/blog-post_10.html

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন
Blogger Widgets

Follow by Email